‘একটি দোকান একটি বাড়ি’
প্রকল্পের সংক্ষিপ্তসার

প্রকল্পের নাম

“একটি দোকান একটি বাড়ি”  শীর্ষক প্রকল্প MISSION BANGLADESH SMART VILLAGES’ (Digital  Revolution to the Root).

লক্ষ্য উদ্দেশ্য

‘একটি দোকান একটি বাড়ি’ সম্পূর্ণ আয় থেকে দায় শোধ প্রক্রিয়ার একটি প্রকল্প। প্রকল্পটি মূলত একটি মেগা মাস্টারপ্যান। এতে সমন্বিত প্রক্রিয়ায় টেকসই উন্নয়নের জন্য সরকারি-বেসরকারি ব্যক্তি, সংস্থা, কোম্পানি সবাই এক সঙ্গে কাজ করবে। বর্তমান বিশ্বে এটি একটি নতুন ধারনার প্রকল্প। সারা দেশ থেকে প্রকল্পের জন্য নির্বাচিত বিভিন্ন খামারী, উদ্যোক্তা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে সমন্বিত কীভাবে দ্র“ততম সময়ে প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি এর ১৭টি গোল বাস্তবায়ন করা যায়, সে বিষয়ে স্থপতি শামসুন্নাহারের দীর্ঘদিনের গবেষণায় উদ্ভাবিত হয়েছে এ প্রকল্পটি। ২০১২ সাল থেকে ‘আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভলপমেন্ট লিমিটেড (এআরডিএল) কোম্পানি এককভাবে কাজ করে চলেছে।

আমাদের প্রিয় এই দেশকে আধুনিক বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে এগিয়ে আসার জন্য এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের এর ডেলটা প্ল্যান ২০০০ ও ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ-এ রূপান্তিত করা ও ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশ হিসাবে দেখার লক্ষ্যে সরকারের পাশাপশি কাজ করার আগ্রহ রয়েছে এ কোম্পানির। জনকল্যাণের দৃষ্টিকোণ থেকে, সরকার অনুমোদিত সংঘ স্মারক ও সংঘ বিধির সংযোজিত নিয়মাবলীর ধারা বলে ও সাংগঠনিক কর্ম কৌশলে গৃহীত কাঠামোর ভিত্তিতে, দেশের বেকার সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে মধ্যম আয়ের জনগণের অতিরিক্ত আয়ের কথা চিন্তা করে, দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্যে মানুষের জন্য সহনশীল ও স্থায়ী বা টেকসই আর্থ সামাজিক কমিউনিটি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য কাজ করা প্রকল্পের উদ্দেশ্য।

কীভাবে কাজ করবে

আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভলপমেন্ট লি. প্রকল্পের সঠিক কর্মপরিকল্পনার মাধ্যমে সারাদেশে কমিউনিটি উদ্যোক্তা বা কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট পার্টনারদের জন্য কম খরচে হিউম্যান রিসোর্স প্রশিক্ষণ, দক্ষতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ দক্ষ জনশক্তি হিসাবে দেশে বিদেশে আত্নকর্মসংস্থা এর কৌশল, ঘরে বসে আয়ের কৌশল, পরিবেশবান্ধব কর্ম ক্ষেত্রে, ওয়ার্কিং পে­স বা ওয়ার্ক ষ্টেশন বা ফার্ম শেয়ার ওনারশীপ সহ একটি ৫০০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট ও ৫০০বর্গফুটের দোকান বা খামার বা ওয়ার্ক ষ্টেশন সহ গ্রীন গ্লোবাল গ্রেট গ্রপ বা “৪জি কমিউনিটি পার্টনার হিসাবে শর্তসাপেক্ষে পার্টনার নিয়োগ করবে। সঙ্গে থাকবে সোলার প্যানেল, বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট, ভার্টিক্যাল ভেজিটেবল গার্ডেন, মিনি এক্যুয়ারিয়াম, হাঁস-মুরগী গরু-ছাগলের খামার। এছাড়া ব্যবসার দক্ষতা জন্যে উৎপাদনের মান ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে, দ্রুত ও মাঝারি শিল্পগুলোকে সম্প্রসারণ করার মাধ্যমে বড় শিল্পায়নের দিকে নিয়ে যেতে, বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে, পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নের জন্যে, রিনিউব্যাল, রিফিউজ, রিইউজড পণ্যের উপর আধুনিক ব্যবসার উপায় বিষয়ে, এজেন্ট ব্যাংকিং, কনজ্যুমার পণ্যের মার্কেটিং বিষয়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে।

দক্ষতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ দক্ষ জনশক্তি হিসাবে দেশে বিদেশে আত্নকর্মসংস্থা এর কৌশল, ঘরে বসে আয়ের কৌশল, পরিবেশবান্ধব কর্ম ক্ষেত্রে, ওয়ার্কিং পে­স বা ওয়ার্ক ষ্টেশন বা ফার্ম শেয়ার ওনারশীপ সহ একটি ৫০০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট ও ৫০০বর্গফুটের দোকান বা খামার বা ওয়ার্ক ষ্টেশন সহ গ্রীন গ্লোবাল গ্রেট গ্রপ বা “৪জি কমিউনিটি পার্টনার হিসাবে শর্তসাপেক্ষে পার্টনার নিয়োগ করবে। সঙ্গে থাকবে সোলার প্যানেল, বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট, ভার্টিক্যাল ভেজিটেবল গার্ডেন, মিনি এক্যুয়ারিয়াম, হাঁস-মুরগী গর“-ছাগলের খামার। এছাড়া ব্যবসার দক্ষতা জন্যে উৎপাদনের মান ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে, দ্রুত ও মাঝারি শিল্পগুলোকে সম্প্রসারণ করার মাধ্যমে বড় শিল্পায়নের দিকে নিয়ে যেতে, বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে, পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নের জন্যে, রিনিউব্যাল, রিফিউজ, রিইউজড পণ্যের উপর আধুনিক ব্যবসার উপায় বিষয়ে, এজেন্ট ব্যাংকিং, কনজ্যুমার পণ্যের মার্কেটিং বিষয়ে প্রশি¶ণের মাধ্যমে।

খরচ

প্রত্যেক উদ্যোক্তার জন্য সব ধরনের প্রশিক্ষণ সহ প্রতিটি স্মার্ট ফ্ল্যাট ও দোকান বা খামার বা ওয়ার্ক ষ্টেশন এর খরচ মাত্র আঠার লাখ টাকা। এর মধ্যে নির্বাচনকালীন ১০%, ট্রেনিংকালীন ২০%, ব্যবসাকালীন ৩০% এবং বাকি ৪০% স্মার্ট ফ্ল্যাট ও দোকান বা খামার বা ওয়ার্ক ষ্টেশন বুঝে নেওয়ার ৩ মাস পূর্বে (ব্যাংক লোনের সুবিধা আছে) পরিশোধযোগ্য। প্রতি গ্রপে ৩০ জন করে ৪জি কমিউনিটি পার্টনার থাকবে। তাদের অংশীদারিত্বে খামার থাকবে। দেশী-বিদেশী আর্থিকসংস্থান ও বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে প্রকল্পের উদ্যোক্তাদের জন্য জয়েন্টভেঞ্চারে বিনিয়োগের ব্যবস্থা করা হবে। বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো এক্ষেত্রে ঋণ সহযোগিতা প্রদান করবে।

লোকেশন

শহরের ক্ষেত্রে লোকেশন হবে মার্কেট ও হাইওয়ের পাশে, নদীর পাশে অকৃষি কিংবা পতিত জমিতে। গ্রামের ক্ষেত্রে গ্রামীণ ইউনিয়নের হাটবাজারের সন্নিকটে। ইতিমধ্যে ঢাকার হাজারীবাগ এবং বিভাগীয় শহরসহ দেশের বিভিন্ন জেলা শহরের বিভিন্ন লোকেশনে জয়েন্টভেঞ্চারে জমি নেয়া হয়েছে। এর সঙ্গে সরকারি খাস জমিগুলিও উক্ত ‘আপন ঐতিহ্যে অভিষ্ট লক্ষ্যে টেকসই বাংলাদেশ ২০৩০’ বিনির্মাণে সবুজ প্রকল্পের জন্যে জাতীয় উন্নয়ন, টেকসই উন্নয়ন ও অব্যাহত অর্থনেতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ভ‚মি মন্ত্রণালয়ের ১৯৯৮ এর স্মারক অনুযায়ী হাট-বাজারের সরকারি খাসজমিতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে ডিজিটালাইজড সুপারশপ, গ্রামীণ স্মার্ট শপ এর জন্য বহুতল বিশিষ্ট ভবন এবং বহুতল বিশিষ্ট মার্কেট নির্মাণসহ নতুন হাট-বাজার সৃষ্টিতে নেয়া উদ্যোগ এর সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন মেট্রোপলিটন এলাকা, জেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা থানা এলাকায় অব্যাবহত অকৃষি খাস জমিতে বা জমি লিজ নিয়ে প্রশাসনিক কর্তৃপ¶ের সহযোগিতায় এবং এফবিসিসিআই, রিহ্যাব, পল্লী উন্নয়ন সং¯’া সহ বিভিন্ন সং¯’া দেশের বিভিন্ন মেট্রোপলিটন এলাকা, জেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা থানার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংক, বীমা এর সার্বিক সহযোগিতার মাধ্যমে “একটি দোকান একটি বাড়ি” প্রকল্পের মাধ্যমে আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভলপমেন্ট লি. কম খরচে ২,৮২,১৭৭ টি দোকান, উৎপাদনমুখী/ ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প, তাঁত, পাট, মৃৎ শিল্প, ¶ুদ্র ও মাঝারী ¶ুদ্রশিল্প কারখানা ¯’াপনসহ, বহুমুখী ¶ুদ্রশিল্প পণ্য উৎপাদন করে বেকারের কর্মসং¯’ানের উদ্যোগ নিয়েছে।

কমিউনিটি উদ্যোক্তা

১) মৎস্য সম্পদ উদ্যোক্তা , ২) প্রাণিসম্পদ উদ্যোক্তা, ৩) যানবাহন/ পরিবহন সেবা উদ্যোক্তা ৪) শিল্প-কারখানা উদ্যোক্তা ৫) ¶ুদ্র ও কুটির শিল্প উদ্যোক্তা (মৃৎ শিল্প, কামারের কাজ, ব­ক-বাটিক/প্রিন্টিং, গ্রামীণ স্যানিটারী ল্যাট্রিন তৈরি, তাঁত শিল্প, কাঠের/ স্টীলের আসবাবপত্র তৈরিকরণ, রেশম বস্ত্র উৎপাদনকারী শিল্প, কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরি, মোমবাতি/ আগরবাতি/ গোলাপজল/ দাঁতের মাজন/ কয়েল তৈরি, বাঁশ ও বেতশিল্প, নকশীকাঁথা তৈরি, যন্ত্রাংশ তৈরির কারখানা, ¶ুদ্র প্রিন্টিং এবং সাইনবোর্ড তৈরি, চামড়াজাত শিল্প, শুটকি মাছ প্রক্রিয়াজাতকরণ, আইসক্রিম/ বরফকল ইত্যাদি)। ৬) অন্যান্য উৎপাদনশীল প্রকল্প উদ্যোক্তা: মাশর“ম চাষ, সবজি চাষ, সেরিকালচার (রেশম চাষ), ফল চাষ, মৌমাছি চাষ, পান বরজ, নার্সারী, ফুল চাষ ইত্যাদি। ৭) সেবা খাত উদ্যোক্তা: সেলুন/ লন্ড্রি, বিউটি পার্লার এবং হারবাল ট্রিটমেন্ট, পাওয়ার টিলার, কম্পিউটার সেবা, ফটোকপি সেবা, টিভি/ ভিসিআর/ বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি/ মোবাইল ফোন মেরামত, গ্রামীণ যানবাহন, সেলাই মেশিন, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং/ গাড়ি মেরামত ওয়ার্কশপ, ডায়াগনস্টিক সেন্টার/ ক্লিনিক/ দš— চিকিৎসা, স্টুডিও, শি¶া সেবা (কোচিং সেন্টার/ কিন্ডার গার্টেন), ক্যাবল অপারেটরস, জেনারেটরের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিতরণ, কমিউনিটি সেন্টার, বিনোদন পার্ক, আবাসিক হোটেল, পর্যটন কটেজ, সোলার পাওয়ার, সাইবার ক্যাফে ইত্যাদি। ৮) বাণিজ্যিক খাত উদ্যোক্তা: মুদি/ মনোহারি, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, কাপড়ের ব্যবসা/ তৈরি পোশাক ব্যবসা, প্রাণিখাদ্য/ মৎস্যখাদ্য বিক্রয়, ধান/ চাল/ অন্যান্য কৃষি পণ্য ক্রয়-বিক্রয়, সার/ বীজ/ কীটনাশক ব্যবসা, পার্টসের দোকান, ইলেকট্রিক সামগ্রী, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, ঔষধ ব্যবসা, শুটকি মাছ ব্যবসা, পাথর ক্রয় বিক্রয়, বালি ক্রয়/ বিক্রয় ব্যবসা, পুরাতন লোহালক্কর (স্ক্রেপ/ ভাঙ্গারী) ব্যবসা, জুতার ব্যবসা, ক্রোকারিজ সামগ্রী ক্রয় বিক্রয়, হার্ডওয়ার ব্যবসা, হোটেল/ রেস্টুরেন্ট ব্যবসা, আসবাবপত্র বিক্রয়, অন্যান্য ব্যবসা/ বিভিন্ন ধরনের ¶ুদ্র ব্যবসা ইত্যাদি। ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আগ্রহী স্মার্ট নারী ও পুর“ষ কমিউনিটি উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে আবেদন গ্রহণ করা হ”েছ।

এই টেকসই উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রশিক্ষণ ও নির্বাচিত ১২,০৯,৩৩০ জন সদস্যকে নির্বাচন উৎপাদনমুখী/ ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প, তাঁত শিল্প, পাট, মৃৎ শিল্প, ¶ুদ্র ও মাঝারী উদ্যোক্তাদের ‘একটি দোকান একটি বাড়ি’ এর আওতায় ট্রেনিং (বেসিক গে­াবাল এন্টারপ্রিনিউর ট্রেইনিং + এন্টারপ্রিনিউর ফাইনান্স ম্যানেজম্যান্ট ট্রেইনিং+ পুঁজি বিনিয়োগ + ব্যবসা + দোকান + বাড়ি + গ্রæপ লাইফ ইনস্যুরেন্স + সš—ানের বেসিক গে­াবাল এডুকেশন + পরিবারের ¯^া¯’্য সেবা + কনজ্যুমার মালামাল সরবরাহ + পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির ব্যবহার + গে­াবাল মার্কেটিং + সোশ্যাল নেটওয়ার্ক) এবং ব্যবসার জন্য শর্তসাপে¶ে বিভিন্ন আর্থিক সং¯’া থেকে প্রাথমিক পুঁজিসহ প্রকল্পের ডিজাইন ও কার্যক্রম পরিকল্পনা করা হয়েছে।

বিপনন প্রক্রিয়া

সারা দেশে থেকে প্রকল্পের জন্য নির্বাচিত উদ্যোক্তারা ৩০ জনের গ্রæপে অথবা বিভিন্ন খামার, উদ্যোক্তা, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ সকল এনজিও পার্টনার বা অংশীদার হয়ে নিজেদের কর্মী, সহকারি, মেম্বারদের জন্য উক্ত স্মার্ট ভিলেজ প্রকল্পের ক্রেতা বা অংশীদার হবেন ।

প্রকল্পের প্রচার-প্রসার

‘আপন ঐতিহ্যে অভিষ্ট ল¶্যে টেকসই বাংলাদেশ ২০৩০’-এর রূপকল্পে কীভাবে কাজ করবেন সদস্যরা সে বিষয়ে প্রশি¶ণসহ সুবিধাভোগী সদস্য বা পার্টনার বা সহোযোগী উদ্যোক্তাদের অনলাইনে আউটসোর্সিং, মার্কেটপে­স, কারিগরি, শিল্প, ইংরেজি ভাষা ইত্যাদিতে দ¶ করে গড়ে তোলার জন্য প্রশি¶ণ দেয়া হবে। নিজ খরচে দেশের সব এনজিওসহ দেশের সব প্রতিষ্ঠান, নির্বাচিত ১২,০৯,৩৩০টি খামার সর্বাধিক দ্র“ততম সময়ে প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি ১৭টি গোল সমšি^ত ভাবে বা¯—বায়নের জন্য কিভাবে কাজ করছে তা জানিয়ে ও প্রতিষ্ঠানের সুনাম প্রকল্পের পার্টনার মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচার-প্রসাররের ল¶্যে যৌথভাবে আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভলপমেন্ট লিমিটেড (এআরডিএল) এর সাথে কাজ করবে।

অর্জন

কোম্পানির নির্বাচিত সফল উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন ব্যাংক তাদের নিজ¯^ শর্তে ‘বহুমুখী তদারকি ঋণ’ ও ‘গ্রামীণ নারী কর্মসং¯’ান ঋণ’ এর আওতায়, চলতি মূলধন পুঁজি এর সহায়তা বা কর্মসং¯’ান ঋণ কর্মসূচির নীতিমালা ও ঋণ নিয়মনীতি এর উপর ভিত্তি করে পৃথকভাবে কম সুদে ¯^ল্প/ মধ্যম মেয়াদকালীন (৯ মাস থেকে তিন বছর) পর্যš— ব্যবসার জন্য চলতি মূলধন ঋণ সহায়তা নেবে। ইতিমধ্যে আমরা জনতা ব্যাংকের আরসিডি শাখা থেকে স্মারক নং- আরসিডি-৪/ দোকান-বাড়ি/ একে-১৫ অনুযায়ী কোম্পানির ‘একটি দোকান একটি বাড়ি’ প্রকল্পে সহযোগিতা ও সর্বো”চ সেবার নিশ্চয়তা প্রদান করেছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে একদিকে সরকার যেমন বিপুল পরিমাণ রাজ¯^ অর্জন করতে পারবে তেমনইভাবে দেশের বিপুল পরিমাণ বেকারের আত্মকর্মসং¯’ানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।