Saturday, 24 August, 2019

Categories
EshoARDL

Bangla

আমাদের প্রিয় এই দেশকে আধুনিক বাংলাদেশ হিসাবে গড়ে তুলতে এগিয়ে আসার জন্য এবং গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের এর ডেলটা প্ল্যান ২০০০ ও ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ এ রূপান্তরিত করা ও ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশ হিসাবে দেখার লক্ষ্যে বেসরকারী ভাবে সরকারের পাশাপশি কাজ করার আগ্রহ জানিয়ে, প্রকল্প অবকাঠামোতে, জনকল্যাণের দৃষ্টিকোণ থেকে , সরকার অনুমোদিত সংঘ স্মারক ও সংঘ বিধির সংযোজিত নিয়মাবলীর ধারা বলে, সাংগঠনিক কর্ম কৌশলের কাঠামোর ভিত্তিতে, আমাদের দেশের বেকার সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে মধ্যম আয়ের জনগণের অতিরিক্ত আয়ের কথা চিন্তা করে, দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্যে মানুষের জন্য সহনশীল ও স্থায়ী বা টেকসই আর্থ সামাজিক কমিউনিটি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন এর জন্য কাজ করছি । এর সাথে কেমন হবে “আপন ঐতিহ্যে অভিষ্ট লক্ষ্যে টেকসই বাংলাদেশ ২০৩০“ বিনির্মানে ও “কিভাবে পাল্টে দিব বাংলাদেশকে” এই উদ্দ্যেশে “একটি দোকান একটি বাড়ী” প্রকল্পের মাধ্যমে আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভোলাপম্যান্ট লিমিটেড (এ.আর.ডি.এল) কোম্পানী নিরলস ভাবে কাজ করছে। এটি সম্পূর্ণ একটি আয় থেকে দায় শোধ প্রক্রিয়ায় প্রাইভেট প্রকল্প । এই প্রকলপটি মূলত একটি মেঘা মাস্টারপ্ল্যান । এতে সমন্বিত প্রক্রিয়ায় টেকসই উন্নয়নে জন্য সরকারী বেসরকারী ব্যাক্তি সংস্থা কোম্পানী গ্রূপ সহ সকলে এক সাথে কাজ করবে । এটি বর্তমান বিশ্বে একটি নতুন ধারনার প্রকল্প । সারা দেশ হতে প্রকল্পের জন্য নির্বাচিত বিভিন্ন খামার, উদ্যোক্তা, বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান সহ সকল এনজিও কে নিয়ে সমন্বিত কিভাবে সর্বাধিক দ্রুত তম সময়ে প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি এর ১৭টি গোল বাস্তবায়ন করার আধুনিক ইনোভেটিভ কর্মকৌশলে এ ডিজাইন করা হয়েছে।

উক্ত প্রকল্পটি স্থপতি শামসুন্নাহার এর দ্বারা স্থপতির স্থাপত্যের বহুমাত্রিক দৃষ্টিতে বহুমুখী টেকসই সমন্বিত মাস্টারপ্ল্যান সম্বলিত নিজস্ব স্থাপত্যিক ডিজাইন ও পরিকল্পনায়, দীর্ঘদিনের গবেষনায় ও ব্যাবস্থাপনায় উদ্ভাবিত হযেছে। ২০১২ হতে আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভোলাপম্যান্ট লিমিটেড (এ.আর.ডি.এল) কোম্পানী ESHOARDL” নামক বেসরকারী প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়ে একক ভাবে কাজ করছে। এটি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার বেকার, নিম্ন, মধ্যম ও উচ্চবিত্ত জনগনের জীবনচলন শিক্ষা আবাসন কর্ম সেবা প্রয়োজনকে মাথায় রেখে এই সমন্বিত টেকসই বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের ৪৪৭৯ টি ইউনিয়ন এ কোটা প্রক্রিয়ায় ২৭০ জন করে ১২০৯৩৩০ জন সুবিধাভোগী সদস্য বা পার্টনার বা সহোযোগী নির্বাচন করা হবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে সুবিধাভোগী সদস্য বা পার্টনার বা সহোযোগী উদ্দ্যোক্তাদেরকে এবং সারা দেশ হতে প্রকল্পের জন্য নির্বাচিত বিভিন্ন খামার, উদ্যোক্তা, বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান সহ সকল এনজিওকে আপন ঐতিহ্যে অভিষ্ট লক্ষ্যে টেকসই বাংলাদেশ ২০৩০ এর রূপকল্পে আপনি কিভাবে কাজ করবেন সেই বিষয়ে প্রশিক্ষন সহ সুবিধাভোগী সদস্য বা পার্টনার বা সহোযোগী উদ্দ্যোক্তাদেরকে অনলাইনে আউটসোর্সিং, মার্কেটপ্লেস, কারিগরি, শিল্প, ইংরেজী ভাষা ইত্যাদিতে দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য প্রশিক্ষন প্রদান করা হবে। এর সাথে নিজ খরচে দেশের সকল এনজিও সহ দেশের সব প্রতিষ্ঠান, নির্বাচিত ১২০৯৩৩০ টি খামার সর্বাধিক দ্রুত তম সময়ে প্রধানমন্ত্রীর এসডিজি ১৭টি গোল সমন্বিত ভাবে বাস্তবায়নের জন্য কিভাবে কাজ করছে তা জানিয়ে ও প্রতিষ্ঠানের সুনাম প্রকল্পের পার্টনার মিডিয়ার মাধ্যমে, প্রচার, প্রসাররের লক্ষ্যে যৌথভাবে আর্কিটেকচার রিসার্চ এন্ড ডেভোলাপম্যান্ট লিমিটেড (এ.আর.ডি.এল) এর সাথে কাজ করবে।

এই টেকসই উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রশিক্ষিত ও নির্বাচিত ১২০৯৩৩০ জন সদস্যকে নির্বাচন উৎপাদনমূখী/ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প, তাঁত শিল্প, পাট, মৃৎ শিল্প, ক্ষুদ্র ও মাঝারী উদ্দ্যোক্তাদেরকে “একটি দোকান একটি বাড়ী” এর আওতায় ট্রেনিং (বেসিক গ্লোবাল এন্টারপ্রিনিউর ট্রেইনিং + এন্টারপ্রিনিউর ফাইনান্স ম্যানেজম্যান্ট ট্রেইনিং+ পুজি বিনিয়োগ + ব্যাবসা + দোকান + বাড়ী + গ্রুপ লাইফ ইনস্যুরেন্স + সন্তানের বেসিক গ্লোবাল এডুকেশন + পরিবারের স্বাস্থ্য সেবা + কঞ্জিউমার মালামাল সরবরাহ + পরিবেশ বান্দব প্রযুক্তির ব্যাবহার + গ্লোবাল মার্কেটিং + সোশ্যাল নেটওয়ার্ক) এবং ব্যাবসার জন্য শর্তসাপে¶ে বিভিন্ন আর্থিক সংস্থা হতে প্রাথমিক পুঁজি সহ প্রকল্পের ডিজাইন ও কার্যক্রম পরিকল্পনা করা হয়েছে। কোম্পানী উক্ত প্রকল্পের জন্য বাংলাদেশের প্রতি ইউনিয়নে (৪৪৭৯) ২৭০ জন কওে মোট ১২০৯৩৩০ জন উদ্যোক্তাদের মধ্য হতে কিছু উদ্যোক্তাদেরকে তাদের স্বঃ স্বঃ বাণিজ্যিক এলাকায় হিসাব খোলা সহ, হিসাব পরিচালনা, লেনদেন, ব্যাবসা পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষিত করছে। উক্ত প্রকল্পের আওতায় এবং জাতীয় উন্নয়ন, টেকসই উন্নয়ন ও অব্যাহত অর্থনেতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ভূমি মন্ত্রনালয় এর স্মারক নং- ——————অনুযায়ী হাট বাজারের সরকারী খাসজমিতে আত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে, ডিজিটালাইজড সুপারশপ, গ্রামীণ স্মার্ট শপ এর জন্য বহুতল বিশিষ্ট ভবন এবং বহুতল বিশিষ্ট মার্কেট নির্মান সহ নতুন হাট বাজার সৃষ্টির নেয়া উদ্যোগ এর সাথে তাল মিলিয়ে, বাংলাদেশের বিভিন্ন মেট্রোপলিটন এলাকা, জেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা থানা এলাকায় অব্যাবহত অকৃষী খাস জমিতে বা জমি লিজ নিয়ে এর প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় এবং এফবিসিসিআই, রিহ্যাব, পল্লী উন্নয়ন সংস্থা সহ বিভিন্ন সংস্থা দেশের বিভিন্ন মেট্রোপলিটন এলাকা, জেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা থানার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংক, বীমা এর সার্বিক সহযোগিতায় “একটি দোকান একটি বাড়ী” প্রকল্পের মাধ্যমে উক্ত কোম্পানী কম খরচে ২৮২১৭৭ টি দোকান, উৎপাদনমূখী/ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প, তাত, পাট, মৃৎ শিল্প, ক্ষুদ্র ও মাঝারী ক্ষুদ্র শিল্প কারখানা স্থাপন সহ, বহুমুখী ক্ষুদ্র শিল্প পণ্য উৎপাদন সহ অনেক বেকার লোকদের কর্মসংস্থান এর উদ্দ্যোগ নিয়েছে। লিমিটেড (এ.আর.ডি.এল) এর সাথে কাজ করবে।

কোম্পানী এর দ্বারা প্রশিক্ষিত ও নির্বাচিত ১২০৯৩৩০ জন উদ্যোক্তাদেরকে দেশের বিভিন্ন মেট্রোপলিটন এলাকা, জেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা থানার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ব্যাংক, বীমা এর সার্বিক সহযোগিতায় সল্প/মধ্যম মেয়াদকালীন (৯মাস হতে তিন বছর) পর্যন্ত ব্যাবসার জন্য চলতি মূলধন পুঁজি এর জন্য সহায়তা করা হবে। সারা দেশে পার্টনার ব্যাংকের ব্রাঞ্চ গুলির মাধ্যমে উদ্যোক্তারা তাদের স্বঃ স্বঃ বাণিজ্যিক এলাকায় হিসাব খোলা সহ, হিসাব পরিচালনা, লেনদেন, ব্যাবসা পরিচালনা করবে। নির্বাচিত সফল উদ্যোক্তারা বিভিন্ন ব্যাংকের নিজ শর্তে “বহুমুখী তদারকি ঋণ” ও “গ্রামীন নারী কর্মসংস্থান ঋণ” এর আওতায়, চলতি মূলধন পুঁজি এর সহায়তা বা কর্মসংস্থান ঋণ কর্মসূচীর নীতিমালা ও ঋন নিয়মনীতি এর উপর ভিত্তি করে আলাদা আলাদা ভাবে কম সুদে সল্প/মধ্যম মেয়াদকালীন (৯মাস হতে তিন বছর) পর্যন্ত ব্যাবসার জন্য চলতি মূলধন ঋণ সহায়তা নিবে। ইতিমধ্যে আমরা জনতা ব্যাংকের আরসিডি শাখা হতে স্মারক নং- আরসিডি-৪/দোকান-বাড়ী/একে-১৫ অনুযায়ী কোম্পানীর “একটি দোকান একটি বাড়ী” প্রকল্পে সহযোগিতা ও সর্বোচ্চ সেবার নিশ্বয়তা প্রদান করেছে। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন সংস্থাও উক্ত প্রকল্পের বিষয়ে অবগতি করা হয়েছে।

এ ধরনের কর্মসূচীর সাথে সারা দেশে হতে প্রকল্পের জন্য নির্বাচিত বিভিন্ন খামার, উদ্যোক্তা, বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্টান সহ সকল এনজিও গুলি পার্টনার বা অংশীদার হয়ে, কোম্পানির সাথে এই প্রকল্পে যুক্ত থেকে প্রকল্পের জন্য অন্তভুক্ত টার্গেট জন গোষ্টির আকাংখাকে চরিতার্থ করার মাধ্যমে এবং বেকারদের আত্তকর্মসংস্থানের মাধ্যমে সারা দেশে হতে প্রকল্পের জন্য নির্বাচিত বিভিন্ন খামার, উদ্যোক্তা, বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্টান সহ সকল এনজিওগুলি ব্যাপক সুনাম লাভ করবে। এই উদ্যোগের ফলে জন উৎপাদনমূখী/ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্প, তাঁত শিল্প, পাট, মৃৎ শিল্প, ¶ুদ্র ও মাঝারী ব্যাবসায়ীদের নির্বাচিত সফল উদ্যোক্তাদেরকে বাংলাদেশের বিভিন্ন মেট্রোপলিটন এলাকা, জেলা, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা এবং থানা এলাকায় একটি করে দোকান বরাদ্দ দেয়া হবে অতএব গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ভূমি মন্ত্রনালয় এর উল্লেখিত সার্কুলেশন এর ১২(ঘ)নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বরাদ্দকৃত প্রতিটি দোকান হতে আদায়কৃত সালামীর ২৫% এবং ভাড়ার ৩০% হিসাবে সরকারি রাজস্ব খাতে বিপুল পরিমাণ অর্থ আয় হবে। যা সারা দেশে আপনার ব্যাংকের ব্রাঞ্চ গুলির মাধ্যমে উদ্যোক্তাদেরকে তাদের স্বঃ স্বঃ বাণিজ্যিক এলাকায় হিসাব খোলা সহ , হিসাব পরিচালনা, লেনদেন, ব্যাবসা পরিচালনা হবে। সরকারের কাছে উক্ত প্রকল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট অংশীদারদের ভাব মূর্তি উজ্জল হবে ।

কারা হবে এসো এআরডিএলগ্রীনগ্রোবালগ্রেটগ্রূপবা৪জিকমিউনিটিপার্টনার বা উদ্যোক্তা ।

১) মৎস্য সম্পদ : মৎস্য চাষ : কার্প জাতীয়, পাংগাস, চিংড়ি, মনোসেক্স তেলাপিয়া, থাই কৈ, মিশ্র মৎস্য চাষ ও রেণু পোনা উৎপাদন (পুকুরে)।

২) প্রাণিসম্পদ : দুগ্ধ খামার, গরু মোটাতাজাকরণ, ছাগল/ভেড়া/মহিষ পালন, ব্রয়লার/ককরেল মুরগীর খামার, লেয়ার মুরগীর খামার, কোয়েল/টার্কির খামার।

৩) যানবাহন/পরিবহন সেবা : টিভিসএস টু-হুইলার/থ্রি হুইলার-এর মাধ্যমে পণ্য/যাত্রী পরিবহন সেবা প্রকল্পে ঋণ প্রদান : লাইসেন্সপ্রাপ্ত/শিক্ষানবিশ ড্রাইভার/উদ্যোক্তাদের আত্মনির্ভরশীল করে গড়ে তোলা, পণ্য সরবরাহ/পরিবহন সহজীকরণ, যাত্রীসেবার মান উন্নয়ন, জেলা সদর, উপজেলা সদরসহ গ্রামাঞ্চলে উন্নত পরিবহন ব্যবস্থা পৌঁছানো, দক্ষ জনশক্তির মাধ্যমে সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাসকরণ ও বেকার যুবদের আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব হ্রাস ও দারিদ্র্য বিমোচনে সহায়তাকরণের নিমিত্তে টিভিএস অটো বাংলাদেশ লিমিটেড-এর সাথে কর্মসংস্থান ব্যাংকের সমঝোতা স্মারক সম্পাদন ও ঋণ প্রদান।

৪) শিল্প-কারখানা : মৎস্য হ্যাচারী, পোল্ট্রি হ্যাচারী, কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরির কারখানা, প্রাণি খাদ্য তৈরির কারখানা, মৎস্য খাদ্য তৈরির কারখানা, চিড়া/মুড়ি কল/ শিল্প, ধানের চাতাল/রাইস মিল, বেকারী শিল্প, অয়েল মিল, মিল, ফলজাত খাদ্য শিল্প (জ্যাম/জেলি/জুস/আচার/শরবত/সিরাপ/সস), সুষম সার প্রস্ত্ততকরণ, আটা/ময়দা/সুজি প্রস্ত্ততকরণ, ডিজাইন ও ফ্যাশনওয়্যার, স্টার্চ, গ্লুকোজ, ডেক্সট্রোজ উৎপাদনকারী শিল্প,আইসক্রিম ফ্যাক্টরী, গুঁড়া মসলা উৎপাদনকারী শিল্প, সুগন্ধি চাল উৎপাদন, ডাল প্রক্রিয়াজাতকরণ, নারিকেল তেল উৎপাদন, বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ, রাবার প্রক্রিয়া- জাতকরণ, চামড়া শিল্প ইত্যাদি।

৫) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প : মৃৎ শিল্প, কামারের কাজ, ব্লক-বাটিক/প্রিন্টিং, গ্রামীণ স্যানিটারী ল্যাট্রিন তৈরি, তাঁত শিল্প, কাঠের/ স্টীলের আসবাবপত্র তৈরিকরণ, রেশম বস্ত্র উৎপাদনকারী শিল্প, কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরি, মোমবাতি/আগরবাতি/গোলাপজল/দাঁতের মাজন/কয়েল তৈরি, বাঁশ ও বেত শিল্প, যন্ত্রাংশ তৈরির কারখানা, ক্ষুদ্র প্রিন্টিং এবং সাইনবোর্ড তৈরি, চামড়াজাত শিল্প, শুটকি মাছ প্রক্রিয়াকরণ, আইসক্রিম/বরফকল ইত্যাদি।

৬) অন্যান্য উৎপাদনশীল প্রকল্প : মাশরুম চাষ, সবজি চাষ, সেরিকালচার (রেশম চাষ), ফল চাষ, মৌমাছি চাষ, নকশীকাঁথা তৈরি, পান বরজ, নার্সারী, ফুল চাষ ইত্যাদি।

৭) সেবা খাত : সেলুন/লন্ড্রি, বিউটি পার্লার এবং হারবাল ট্রিটমেন্ট, পাওয়ার টিলার, কম্পিউটার সেবা, ফটোকপি সেবা, টিভি/ভিসিআর/বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি/ মোবাইল ফোন মেরামত, গ্রামীণ যানবাহন, সেলাই মেশিন, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং/গাড়ি মেরামত ওয়ার্কশপ, ডায়াগনস্টিক সেন্টার/ক্লিনিক/দন্ত চিকিৎসা, স্টুডিও, শিক্ষা সেবা (কোচিং সেন্টার/কিন্ডার গার্টেন), ক্যাবল অপারেটরস, জেনারেটরের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিতরণ, কমিউনিটি সেন্টার, বিনোদন পার্ক, আবাসিক হোটেল, পর্যটন কটেজ, সোলার পাওয়ার, সাইবার ক্যাফে ইত্যাদি।

৮) বাণিজ্যিক খাত : মুদি/মনোহারি, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, কাপড়ের ব্যবসা/তৈরী পোষাক ব্যবসা, প্রাণিখাদ্য/মৎস্যখাদ্য বিক্রয়, ধান/ চাল/অন্যান্য কৃষি পণ্য ক্রয়-বিক্রয়, সার/বীজ/কীটনাশক ব্যবসা, পার্টসের দোকান, ইলেকট্রিক সামগ্রী, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, ঔষধ ব্যবসা, শুটকী মাছ ব্যবসা, পাথর ক্রয় বিক্রয়, বালি ক্রয়/বিক্রয় ব্যবসা, পুরাতন লোহালক্কর (স্ক্রেপ/ভাঙ্গারী) ব্যবসা, জুতার ব্যবসা, ক্রোকারিজ সামগ্রী ক্রয় বিক্রয়, হার্ডওয়ার ব্যবসা, হোটেল/রেস্টুরেন্ট ব্যবসা, আসবাবপত্র বিক্রয়, অন্যান্য ব্যবসা/বিভিন্ন ধরনের ক্ষুদ্র ব্যবসা ইত্যাদি।

৯) অণ্যান্যঃ মৎস্য হ্যাচারীর উপকরণ সাপ্লাই, পোল্ট্রি হ্যাচারীউপকরণ সাপ্লাই, কৃষি যন্ত্রপাতির  তৈরির উপকরণ সাপ্লাই , প্রাণি খাদ্য তৈরির উপকরণ সাপ্লাই ও কারখানা, মৎস্য খাদ্য তৈরির কারখানা, চিড়া/মুড়ি কল/ শিল্প, রাইস মিল/চাল কল, বেকারী শিল্প, অয়েল মিল/তেল কল, স’মিল, ফলজাত খাদ্য শিল্প (জ্যাম, জেলি, জুস, আচার, শরবত, সিরাপ, সস), সুষম সার প্রস্তুতকারী শিল্প, আটা, ময়দা, সুজি প্রস্তুতকরণ, ডিজাইন ও ফ্যাশন ওয়্যার, স্টার্চ, গ্লুকোজ, ডেক্সট্রোজ উৎপাদনকারী শিল্প, আইসক্রিম ফ্যাক্টরী, গুঁড়া মসলা উৎপাদনকারী শিল্প, সুগন্ধি চাল উৎপাদন, ডাল প্রক্রিয়াজাতকরণ, জর্দা প্রস্তুতকরণ শিল্প, নারিকেল তেল উৎপাদন শিল্প, বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ, রাবার প্রক্রিয়াজাতকরণ, চামড়া শিল্প, মৃৎ শিল্প, কামারের কাজ, ব্লক-বাটিক/প্রিন্টিং, গ্রামীণ স্যানিটারী ল্যাট্রিন তৈরি, তাঁত/বুনন শিল্প, কাঠের/স্টীলের আসবাবপত্র তৈরি, রেশম বস্ত্র প্রস্তুতকরণ শিল্প, কৃষি যন্ত্রপাতি তৈরি, মোমবাতি/আগরবাতি/গোলাপজল/দাঁতের মাজন/কয়েল তৈরি, বাঁশ ও বেত শিল্প, যন্ত্রাংশ তৈরির কারখানা, ক্ষুদ্র প্রিন্টিং এবং সাইনবোর্ড তৈরি, চামড়াজাত শিল্প, শুটকি মাছ প্রক্রিয়াকরণ, বরফ কল, নকশী কাঁথা , লুমিনিয়াম এর ব্যাবসা , বেকারী , চকলেট বিস্কিট , ওয়েফার , রুটি কারখানা,কেক তৈরী,জামা ব্লাউজ বোতাম ও হুক  তৈরী, টিপ  তৈরী, বায়ো ডিজেল ,কেন্ড্যেল তৈরী , কার্টুন তৈরী,পুতুল ও খেলনা  তৈরী,নারিকেল তেল কারখানা, ঢালা তৈরী ,গুড়া মসলা কারখানা,জ্যুস   কারখানা,প্লাস্টিক কাপ , প্ল্যেট , প্লাস্টিকের ব্যাগ কারখানা,হ্যান্ডমেইড পেপ্যার,আচার তৈরী কারখানা,রাবারের পণ্যের কারখানা, কটন বাড কারখানা,  ইত্যাদি ।